মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ০৯:২৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
নামায, রোজা, হজ, যাকাত, কোরবানি ইত্যাদি কবুল হওয়া এবং না হওয়া নির্ভর করে আদব ও নিয়্যতের পরিশুদ্ধতার উপর’ – ড. মুহাম্মদ নুরুন্নবী আজহারী। বাগানবাজার উচ্চ বিদ্যালয়ে নজরুল জয়ন্তী উদযাপন হারুণ ভান্ডার দরবারের বার্ষিক ওরশ শরীফ অনুষ্ঠিত মাইজভান্ডার দরবার শরীফে জ্যৈষ্ঠ মাসের ফল ফাতেহা শরীফ ও মাসিক মাহফিল ০৯ জৈষ্ঠ ২৩ মে বৃহস্পতিবার. মাইজভান্ডারী গাউছিয়া হক কমিটি বাংলাদেশ সূর্যগিরি আশ্রম শাখার উদ্যোগে দক্ষ জনশক্তি গঠনের আলোকে সেলাই প্রশিক্ষণ কর্মসূচীর উদ্বোধন ফটিকছড়িতে চেয়ারম্যান পদে নাজিম মুহুরী, ভাইস চেয়ারম্যান পদে জসিম, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে শারমিন জয়ী বাগান বাজার উচ্চ বিদ্যালয়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত, ২২ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে সৈয়দ জিয়াউল হক মাইজভাণ্ডারী ট্রাস্টের আর্থিক সহায়তা প্রদান অনুষ্ঠানে এম.পি আলহাজ্ব আবদুচ ছালাম মানবপ্রেমই মুলত স্রষ্টা প্রেম , সুফিবাদ মানুষকে বিভেদমুক্ত ঐশী বন্ধনে আবদ্ধ করে– আমেরিকার বোস্টনে মুক্ত আলোচনায় হযরত সৈয়দ মোহাম্মদ হাসান মাইজভান্ডারী আল্লামা সৈয়্যদ মোহাম্মদ নুরুল মুনাওয়ার (র.)’র বার্ষিক ওরশ শরীফে আওলাদে গাউছুল আজম মাইজভাণ্ডারী’র আগমন
নোটিশ :

চট্টগ্রামের প্রভাবশালী দোভাষ পরিবারের নির্যাতনে বসতহারা খৃষ্টান পরিবার

চট্টগ্রামের ফিরিঙ্গীবাজার এলাকার প্রভাবশালী দোভাষ পরিবারের নির্যাতনে বসত বাড়ি হারাতে বসেছে এক খৃষ্টান প্রতিবন্ধী পরিবার। ওই পরিবারকে বসত বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করার জন্য থানা পুলিশসহ স্থানীয়দের নিয়ে নির্যাতন চালিয়ে আসছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে থানায় অভিযোগ করেও কোন সুফল পায়নি মারিয়া মার্সার নামে এই নারী। জানা যায়, নগরীর কোতোয়ালি থানাধীন পাথরঘাটার শেখ পাড়া এলাকার খৃষ্টান পাড়ার মারিয়া মার্সার ও তার প্রয়াত স্বামী রিচার্ড মার্সার দীর্ঘদিন ধরে ঘোষণা সূত্রে পাওয়া মৌরশী সূত্রে পাওয়া জায়গায় চার দশকের বেশি সময় ধরে বসবাস করে আসছেন। সম্প্রতি ফিরিঙ্গীবাজারের প্রভাবশালী দোভাষ পরিবারের শাহ আলম দোভাষের পুত্র শহিদুল আলম দোভাষ বসতভিটা দখল করার জন্য চেষ্টা করছেন। গত ৩১ অক্টোবর বহিরাগত সন্ত্রাসী নিয়ে মারিয়া মার্সারের বাসায় হামলা চালিয়ে তালা ভেঙে অবৈধভাবে একটি বাসা দখল করে নিয়েছে। এ বিষয়ে ভিকটিম মারিয়া মার্সার ও তার প্রতিবন্ধী সন্তান নিয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে থানা পুলিশ উভয়কে শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখার নির্দেশ দিলেও শহিদুল আলম দোভাষ তা অমান্য করে আসছে। এমন অবস্থায় সংখ্যালঘু খৃষ্টান সম্প্রদায়ের এ মহিলা প্রতিবন্ধী সন্তান নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। পাশাপাশি মৌরশী সূত্রে পাওয়া সম্পত্তি দখল হয়ে যাওয়ায় এক প্রকার আর্থিক ও মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন। ভিকটিম মারিয়া মার্সার অভিযোগ করে জানান, দীর্ঘ দিন ধরে আমার স্বামী ও স্বামীর ওয়ারিশগণ বসবাস করে আসছি। জায়গার বিদ্যুৎ বিল, গ্যাস বিল ও আরএস ও পিএস মূলে জায়গা ভোগ দখল করে আসছি। কিন্তু চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান জহিরুল আলম চৌধুরী দোভাষ ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর লুৎফুন্নেছা দোভাষ বেবির ভাই শহিদুল আলম দোভাষ এ দুই জনের ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে আমাদের উচ্ছেদ করার জন্য উঠে পড়ে লেগেছে। আমরা অসহায় নিরীহ পরিবার হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিতে পারছি না। থানা পুলিশ জানলেও শহিদুল আলম দোভাষ প্রভাব খাটিয়ে তার পক্ষে নিচ্ছে আইন আদালত সব কিছু। এমন পরিস্থিতিতে দেশের সর্বোচ্চ আদালতের সুনজর কামনা করছি। তিনি বলেন, আমরা সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের লোকজন, আমাদের পাশে দাঁড়ানোর কেউ নেই। আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে আমরা এ ধরনের নির্যাতন ও ঘর হারাতে হবে কখনো চিন্তা করিনি। আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, আইনমন্ত্রী ও চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ কমিশনারের সহযোগিতা কামনা করছি। পূর্ব পুরুষের ভিটা বাড়ি রক্ষায় সকলকে আমাদের পাশে থাকার অনুরোধ করছি অন্যাথায় প্রতিবন্ধী সন্তান নিয়ে আমার আত্মহত্যা করা ছাড়া আর কোন পথ খোলা নাই। এ বিষয়ে অভিযুক্ত দোভাষ পরিবারের সন্তান শহিদুল আলম দোভাষ বিষয়টি নিজের জায়গা দাবি করে বলেন, এটা আমার জায়গা, আমার জায়গায় ওরা বসবাস করছে। আমাদের জায়গায় ওই খৃষ্টান পরিবার জোরপূর্বক দখল করে রেখেছে।



ফেসবুকে আমরা

ফেসবুকে আমরা