মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ০৮:২৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
সূর্যগিরি আশ্রমের উদ্যোগে বৃক্ষরোপন ও বিতরণ যুগ যুগ ধরে বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় আহলে বায়তে রাসুল(দঃ) এর কোরবানী চিরস্মরণীয় মুজিব শতবর্ষ স্বপ্নযাত্রা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে ইউনিফর্ম বিতরণ, ইমাম হোসাইন (রাঃ)’র শাহাদাতের মাধ্যমে হক ও বাতিল এবং মুনাফিক এর পরিচয় পাওয়া যায় মাইজভান্ডার দরবার শরীফে ১১ মহরম ১৮ জুলাই শোহাদায়ে কারবালা মাহফিলের প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত. বাগীশিক চট্টগ্রাম উত্তর জেলা সংসদের পুরস্কার ও সনদ প্রদান অনুষ্ঠান আগামী ২৬ জুলাই সূর্যগিরি আশ্রমের উদ্যোগে কৃতি শিক্ষার্থীদের সম্মাননা ও সনদ বিতরণ প্রিয় নবি (সাঃ) উম্মতের জন্য কারবালার ময়দানে আহলে বাইতের কুরবানী সর্বোচ্চ ত্যাগ এর শিক্ষা দেয়” লায়ন্স ক্লাব অব চিটাগাং ফটিকছড়ির উদ্যোগে সূর্যগিরি আশ্রমে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ মাইজভাণ্ডারী গাউসিয়া হক কমিটি বাংলাদেশ এর সাংগঠনিক সংলাপ ২০২৪ শুরুঃ
নোটিশ :

আশেকানে হক ভাণ্ডারী, শোকর – এ মওলা মঞ্জিলের উদ্যোগে মহান ১০ ই মাঘ ওরশ শরীফের প্রস্তুতি সভা সম্পন্ন :-

Exif_JPEG_420

মাইজভাণ্ডারী গাউসিয়া হক কমিটি বাংলাদেশ, আশেকানে হক ভাণ্ডারী, শোকর মওলা মঞ্জিলের উদ্যোগে মহান ১০ ই মাঘ আওলাদে রাসূল (দঃ), বেলায়তী মোতলাকার ধারক, বাংলাদেশে প্রবর্তিত একমাত্র ত্বরিকা বিশ্ব সমাদৃত ‘ত্বরিকায়ে মাইজভাণ্ডারী’র প্রবর্তক, ইমামুল আউলিয়া, গাউসুল আজম হযরত মাওলানা শাহসূফি সৈয়দ আহমদ উল্লাহ মাইজভাণ্ডারী (কঃ) কেবলা কাবার ১১৮ তম বার্ষিক ওরশ শরীফ উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা, মিলাদ ও জিকিরে সেমা মাহফিল সংগঠনের সভাপতি সৈয়দ শফিউল আজিম সুমন ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ গোফরান উদ্দীন ফরহাদের সঞ্চালনায় প্রধান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাইজভাণ্ডারী গাউসিয়া হক কমিটি বাংলাদেশ, কেন্দ্রীয় পর্ষদের সিনিয়র সদস্য ও অত্র সংগঠনের প্রধান উপদেষ্টা মুহাম্মদ শাহেদ আলী চৌধুরী মাইজভাণ্ডারী। এতে আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাইজভাণ্ডারী গাউসিয়া হক কমিটি বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় পর্ষদ মনোনীত ফটিকছড়ি ‘খ’ জোনের সমন্বয়ক মাষ্টার মুহাম্মদ দিদারুল আলম ও মাষ্টার আহমদ হোসেন।
পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত ও মাইজভাণ্ডারী কালাম পরিবেশনের মাধ্যমে সভা শুরু হয়। সভায় স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন সংগঠনের সিনিয়র সদস্য মুহাম্মদ ওমর ফারুক। এরপর সমন্বয়কদ্বয় বক্তব্য প্রদান করেন।

প্রধান অতিথি উনার বক্তব্যে বলেন, “প্রকৃত মাইজভাণ্ডারী ত্বরিকার অনুসারীগণ সবরকারী। সবরের মধ্যে শোকর রয়েছে এবং শোকরের মধ্যে রয়েছে জিকির। আর জিকির হচ্ছে মওলার ভালোবাসায় নিজেকে উজ্জীবিত রাখা।”
মহান ১০ ই মাঘ ওরশ শরীফের তাৎপর্যের আলোকে তিনি আরো বলেন , “যারা বিনয়ী তারা সুফিবাদে বিশ্বাসী। আমাদের তাসাউফের পথে অগ্রসর হতে হলে আদব ও বিনয়ের অনুশীলন করতে হবে। যা মাইজভাণ্ডারী ত্বরিকার অনুসারী হওয়ার পূর্ব শর্ত। আমরা নিজস্ব অবস্থান থেকে সেবক বা খেদমতগার হলে আমাদের মাঝে বিনয় আসবে। বিনয়ের সাথে খেদমতে দাখিল হলেই ওরশ শরীফের ফঁয়ুজাত আমাদের ওপর বর্ষিত হবে। ”

কেন্দ্রীয় পর্ষদ প্রেরিত মহান ১০ ই মাঘ ওরশ শরীফের নির্দেশনা মোতাবেক সংগঠনের কর্মসূচী বাস্তবায়ন ও ওরশ শরীফে অংশগ্রহণের আহবান জানিয়ে সভাপতি ওনার বক্তব্যের মাধ্যমে সভার সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

সভায় আশেকানে হক ভাণ্ডারী, শোকর – এ মওলা মনজিল ও জ্যোতি ফোরামের সর্বস্তরের উপদেষ্টা, কর্মকর্তা ও সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

পরবর্তীতে মিলাদ, মোনাজাত ও জিকিরে সেমা মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।



ফেসবুকে আমরা

ফেসবুকে আমরা